peperonity.net
Welcome, guest. You are not logged in.
Log in or join for free!
 
Stay logged in
Forgot login details?

Login
Stay logged in

For free!
Get started!

Text page


chotibd.peperonity.net

শিলার ভোদাটা ছিল খুব টাইট

আমার খালা মারা যান অনেকদিন রোগে ভুগে। খালার সবচেয়ে বড় মেয়ে শিলা। গ্রামের মেয়ে। বাড়িতে ওকে দেখার মতো আর কেই নেই। দুই ভাই শহরে থাকে। ভাইদের সাথে থাকার মতো সুযোগও নেই। তাই মা তাকে আমাদের বাসায় নিয়ে আসে। আমাদের বাসা ছিল অনেক বড়। আমার বড় ভাই ও বোন পড়ালেখার জন্য ঢাকায় থাকতো।বাসায় আমি, মা, বাবা আর শিলা থাকতাম। শিলা আমার চেয়ে বছর তিন বড় হবে। আমি তখন ক্লাস নাইনের ছাত্র। যৌবন জ্বালায় আমি পুড়ি প্রতিক্ষণ। তার মধ্যে একটি অতিবো সেক্সি মেয়ে যদি আশা পাশে ঘুরে বেড়ায়, তাহলে কেমন লাগবে!!! ঈদের পর বাবা-মা বিশেষ কাজে যেতে হলো গ্রামের বাড়িতে। আপু এবং ভাইয়া কলেজ খোলারকারণে আবারো চলে যায় ঢাকায়। আমি আর শিলা শুধু বাসায়!!! কিযে মজা লাগছিল তখন, লিখে বোঝাতে পারবো না। সারাদিন টিভি দেখে আর গল্প করে কাটালাম দুজনে। আমি যে তাকে বিছানায় নিজের করে পেতে চাই সেটা, তাকে কোন ভাবেই বুঝতে দিলাম না। কিন্তু তার চোখে আমি যৌনতা খুঁজে পেতাম। রাতের খাবার খেয়ে বললাম, আমি আপনার সাথে শুতে চাই। আমি একা একা ঘুমাতে পারবো না। প্রথমে সে রাজি হচ্ছিল না। পরে জোর করাতে রাজি হলো। আমি বড় বিছানার এক পাশে, আর শিলা অন্য পাশে। কিভাবে যে কি করি ভেবে পাচ্ছিলাম না। খুব ভয় লাগছিল তখন। কারণ, এটাই আমার জীবনের প্রথম অভিজ্ঞতা। আমি অস্থিরতার কারণে কিছুটা কাঁপছিলাম। আস্তে আস্তে আমি শীলার দিকে এগিয়ে গেলাম। প্রথমে ওর উর্ধ্বত বুকে হাত রাখলাম। ও জটাত করে সরিয়ে দিল। পরে আবারো দিলাম। এবার ও বলে উঠলো, "এই , এইসব কি করছো?" আমি কিছু না বলে, ওকে জড়িয়ে ধরতে গেলাম। সে আমাকে ধরে বললো, "কি হলো? এতেই কি তোমার অবস্থা রাখার হয়ে গেল??" বলেই মুচকি হাসি দিল আমাকে উদ্দেশ্য করে। আমি আবারো তাকে খুব চাপ দিলাম। ওর বুকের উপর উঠে গোলাম।ওআমাকে সরাতে চেষ্টা করলো। কিন্তু, পারলোনা। আস্তে আস্তে একটু একটু লজ্জাও পেলো। আমি শিলাকে চুমো দিতে লাগলাম। সে অস্থির হয়ে গেলো। আমি তার জামা খুলে ফেললাম। তার দুধ দুটোকে চুসতে লাগলাম। সে প্রচন্ড শিহরিত হতে লাগলো। আমি এরপর তার নাভিতে চুমো দিলাম। সে আমাকে ধরে চুমো দিতে শুরু করলো পাগলেরমতো। আমি তার পায়জামা খুলে ফেললাম। আমার ধনটা এতো শক্ত হয়ে গেল যে, বলার মতো নয়। তার ভোদাতে একটা আঙুল ঢুকিয়ে দিতেই সে উঁ-আঁ শব্দ করতে লাগলো। আমি আর সহ্য করতে পারলাম না। তার শক্ত ভোদায় ধনটা আস্তে আস্তে ঢুকিয়ে দিতেলাগলাম। খুব কষ্ট হচ্ছিল। এতো শক্ত ভোদা যে, বলার মতো নয়। তাছাড়া আমারধনটাও খুব ...


This page:




Help/FAQ | Terms | Imprint
Home People Pictures Videos Sites Blogs Chat
Top
.