peperonity.net
Welcome, guest. You are not logged in.
Log in or join for free!
 
Stay logged in
Forgot login details?

Login
Stay logged in

For free!
Get started!

Text page


new.bangla.choti.peperonity.net

ঠোঁট

পলাশ ঐ ঠোঁট দেখেই পছন্দ করে ছিল প্রিয়াকে। কি আছে ঐ ঠোঁটে? একজোড়া অতি সাধারণ ঠোঁট। অন্যান্য মেয়েদের যেমনটি থাকে তেমনি। আহামরি ধরণের কিছু নয়। তাহলে পলাশ কি আবিস্কার করলো ঐ ঠোঁটের মাঝে। রীনা ভাবীতো বলেই ফেললেন -’মেয়েটির ঠোঁটটির জন্যই একটু খারাপ লাগছে। তাছাড়া শরীরের গড়ন, রং, হাইট ইত্যাদি বেশ পছন্দসই।’ পলাশের সাথে একচোট ঠান্ডা কথা কাটাকাটিও হয়ে গেল। পলাশ ভাবীর কানের কাছে মুখ নিয়ে বলে-’আসলে মেয়েটির ঐ ঠোঁটের জন্যই ওর সবকিছু এতো সুন্দর।’

রীনা ভাবী আরও কিছু বলতে চাইছিল কিন্তু পলাশ ভাবীর সাথে তর্ক করতে চায় না। শুধু বলে -’ভাবী আপনি আমার চোখ দিয়ে একটিবার ওকে দেখুন, তবেই বুঝতে পারবেন ঐ ঠোঁটে কি আছে।’

রীনা ভাবী হেসেই উড়িয়ে দেয় পলাশের কথা। সবাই খুটিয়ে খুটিয়ে দেখে মেয়েটিকে। শরীরের গড়ন একটু মোটা হলেও গায়ের রংটি বেশ ফরসা। মুখের আদল একটু চ্যাপটা ধরণের কিন্তু বেশ মায়া ভরা মিষ্টি চেহারা। শেষে সকলের সিদ্ধান্ত – পাঁচ রকম তো পাওয়া যাবে না; তাছাড়া ছেলের যেহেতু পছন্দ তাই শুভস্য শীঘ্রম। পাকা কথা হয়ে গেল। পলাশ মনে মনে খুব খুশি। কারণ প্রিয়াকে সে ভাবী হিসাবে অনেক কাছে পাবে। পলাশ ওর ঘনিষ্ট বন্ধুর জন্য মেয়ে দেখতে এসেছিল। প্রথম দৃষ্টিতেই মেয়েটির ঠোঁট দুটি ওকে আকৃষ্ট করে।

যথারীতি ঘটা করে বিয়ে হয়ে গেল। মিঠুর বন্ধু হিসাবে পলাশের সাথে প্রিয়ার পরিচয় হলো। রীনা ভাবী দুষ্টুমি করে বলেই ফেললো- ‘দেখ মেয়ে তোমার ঠোঁট দুটি সাবধানে রেখো। তোমার ঠোঁটের উপর কিন্তু অনেকের নজর আছে।’ ঠিক ঐ সময়ই প্রিয়া মাথা তুলে পলাশের দিকে তাকায়। পলাশ লজ্জা পায়। আমতা আমতা করে বলে -’ভাবী সেটাতো ছিল মেয়ে দেখতে গিয়ে। এখন ওসব কথা কেন?’
‘আগে থেকে একটু সাবধান করে দিলাম। পুরুষ মানুষতো তাই বিশ্বাস করা যায় না।’
‘আপনি কি ফারুক ভাইকে ঐরকমই বিশ্বাস করেন নাকি?’
‘না তা কেন? ও ওরকম মানুষ নয়!’ একটু অপ্রস্তুত হয়ে বলে রীনা ভাবী।
‘ও বুঝতে পারলাম ফারুক ভাই পুরুষ মানুষ না, তাই তাকে বিশ্বাস করা যায় তাই না?’
সবাই হেসে ওঠে। পলাশ লক্ষ্য করে প্রিয়াও ঘোমটার নিচে মাথা নিচু করে হাসছে। এভাবেই পরিচয় পর্বটি শেষ হয়। কিন্তু পলাশের চোখে প্রিয়ার ঠোঁট দু’টি শিল্পীর সুনিপুন হাতে গড়া চিত্রটির মত সারাক্ষণই ভাসতে থাকে।

সময় পেরিয়ে যায়। এখন অনেক সহজ হয়েছে ওরা। অনেক ঠাট্টা তামাশার কথাও হয়। কিন্তু পলাশের মনের ...
Next part ►


This page:




Help/FAQ | Terms | Imprint
Home People Pictures Videos Sites Blogs Chat
Top
.